৫ টি পাওয়ার পয়েন্ট ডাটা প্রেজেন্টেশন টিপস - Graphic School

Blog

৫ টি পাওয়ার পয়েন্ট ডাটা প্রেজেন্টেশন টিপস

মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট। খুব পরিচিত ও বহুল ব্যবহৃত একটি প্রেজেন্টেশন প্রোগ্রাম। আজকে আমি আপনাদের জন্য পাঁচটি পাওয়ার পয়েন্ট ডাটা প্রেজেন্টেশন টিপস নিয়ে কথা বলবো। আসুন তাহলে কথা না বাড়িয়ে জেনে নিই টিপস গুলোঃ

১। আপনার স্লাইড ডিজাইনটিকে সহজতর করে তুলুনঃ

আপনার প্রেজেন্টেশনটি যতটা সম্ভব কার্যকরভাবে তৈরি করুন এবং মাথায় রাখতে হবে যেন প্রেজেন্টেশনটি মানুষের বিশ্বাসযোগ্যতা তৈরী করে এমনভাবে করুন। কারণ, এটা এমন এক জিনিস যা আপনার শ্রোতাদের মন পরিবর্তন করবে কার্যকরভাবে আপনার ব্র্যান্ডের প্রচার করবে, এবং চুক্তি সম্পন্ন করবে।

আপনার তথ্য দিয়ে পূর্ণ করুন এবং এক্ষেত্রে বেশি কিছু লেখালেখির চেষ্টা করবেন না। আপনি চাইলে এখানে আপনার তথ্যগুলো পরিস্কারভাবে উপস্থাপন করতে পারবেন।

তথ্য গুলোকে একত্র করতে বিভিন্ন ধরনের ডিজাইন ব্যবহার করুন। একটা বিষয় মাথায় রাখতে হবে, একই রঙ একই রকম তথ্যের মধ্যে পার্থক্য কঠিন করে তুলে এবং আলাদা রঙ তথ্যক্ষেত্র গুলোকে আলাদা করতে সাহায্য করে। সেন্স সেরিফ ফন্টের ব্যবহার আপনার তথ্য উপস্থাপনাকে সামঞ্জস্যপূর্ণ রাখবে। সে জন্য আপনি চাইলে সেন্স সেরিফ ফন্ট ব্যবহার করতে পারেন। আপনার স্লাইড একদম হিজিবিজি ডিজাইন দ্বারা ভরে তুলবেন না। আপনার স্লাইডে প্রচুর পরিমান জায়গা ফাঁকা রাখার চেষ্টা করবেন।

২। স্বচ্ছতা নিয়ে আসুনঃ

প্রেজেন্টেশনে আপনার তথ্যগুলো সংকুচিত করা নিঃসন্দেহে চ্যালেঞ্জিং। কিন্তু এটাই হচ্ছে অন্যের প্রতি প্রভাব তৈরি করার একমাত্র চাবিকাঠি। প্রত্যেক স্লাইডের জন্যই একটি প্রাথমিক বিষয়কে কেন্দ্রবিন্দু হিসেবে তুলে ধরুন। যদি সম্ভব হয়, তবে প্রত্যেকটি উপাদান থেকেও একটি ছন্দময় কেন্দ্রবিন্দু বের করে আনুন এবং সেইটা উপস্থাপন করার চেষ্টা করুন।

আসলে এটাই মুল বিষয়, যেখান থেকে আপনি প্রতিটি স্লাইডকে গড়ে তুলতে পারেন। মনে রাখবেন, আপনি ইনফোগ্রাফিকে যতবেশি তুলনামুলক তথ্য যোগ করবেন, ততবেশি আপনার শ্রোতাদের বিভ্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বাড়বে। প্রয়োজনে প্রেজেন্টেশনে আরেকটি স্লাইড যোগ করুন, এবং অতিরিক্ত তথ্য নতুন স্লাইডে নিয়ে আসুন। কিন্তু আপনার প্রতিটি স্লাইডই সাধারণ হতে হবে।

৩। আপনার তথ্যগুলোকে আদর্শিক করে তুলুনঃ

আপনার লক্ষ্য হচ্ছে অন্তর্দৃষ্টিপূর্ণ তথ্য উপস্থাপন করা। আপনি নিঃসন্দেহে চান, আপনার তথ্যসমুহ সবার থেকে আলাদা হোক। হ্যাঁ, আপনি চাইলেই সেইটা করতে পারবেন। কিন্তু আপনার তথ্যগুলো সেখানে এমন ভাবে উপস্থাপন করতে হবে যেনো আপনার শ্রোতাদের কাছে তা বোধগম্য হয়।

৪। সবচেয়ে সেরামানের ইনফোগ্রাফিক স্লাইডটিকে পছন্দ করুনঃ

আপনি অনেকভাবেই আপনার তথ্য উপস্থাপন করতে পারেন। যেমনঃ ফ্লো চার্ট, ট্রি ডায়াগ্রাম, টাইমলাইন, লাইন গ্রাফ, বার চার্ট-আরও অনেক কিছু।

কিন্তু পাওয়ার পয়েন্টের মাধ্যমে তথ্য উপস্থাপন করার জন্য এমন ইনফোগ্রাফিক স্লাইড পছন্দ করুন, যেটা আপনার তথ্যের জন্য সবচেয়ে ভালো হবে। সাথে আপনার তথ্য উপস্থাপনার জন্য সেই ফরম্যাট ব্যবহার করবেন যেটি আপনার বিষয়বস্তুকে পরিস্কারভাবে প্রকাশ করে এবং অন্যকে বোঝার জন্য সহজতর করে তোলে।

৫। একটি Visual Story উপস্থাপন করার চেষ্টা করুনঃ

আপনার কাছে হয়তোবা আপনার রিসার্চ করা সব তথ্য প্রকাশ করাই লোভনীয় মনে হতে পারে, কিন্তু এটা কেবল আপনার দর্শকদের জন্য বিরক্তিকর হবে। সর্বোপরি, আপনি হয়তো চান আপনার তথ্যগুলো যেন আপনার গল্পটাই বলে। সেজন্য আপনি আপনার শ্রোতাদেরকে আপনি একটি চাক্ষুষ আখ্যানের মধ্য দিয়ে নিয়ে যেতে পারেন।

আপনি যদি একটি সেলস প্রেজেন্টেশন বানিয়ে থাকেন, তাহলে এমনভাবে তথ্য সাজান যেন তা আপনার শ্রোতাদেরকে কিনতে প্রলুব্ধ করে। আপনি যদি নতুন কোনও উদ্যোগ নিয়ে থাকেন, তাহলে এমনভাবে তথ্য উপস্থাপন করুন যেটা বিনিয়োগকারীদেরকে বিনিয়োগ করতে উৎসাহিত করে তুলবে। আপনি যদি আপনার বিজনেস টিমকে এই দ্বিবার্ষিক পরিসংখ্যান সম্পর্কে অবহিত করতে চান, তাহলে এমনভাবে তথ্য উপস্থাপনা করুন যেটা আপনার নির্ধারিত মাইলফলকে পৌঁছানো সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা দেয়।

একটি পরিষ্কার লক্ষ্য নির্ধারণ করুন এবং এমনভাবে তথ্য উপস্থাপনা করুন যা আপনাকে লক্ষ্যে পৌঁছাতে সহায়তা করে।

সবশেষে বলতে চাই, প্রেজেন্টেশন আপনার জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে। সে জন্য আপনি আপনার প্রেজেন্টেশনকে অতি গুরুত্ব সহকারে তৈরি করুন। প্রেজেন্টেশন তৈরির ক্ষেত্রে আপনাকে যথা সম্ভব কম লেখায় বেশি তথ্য প্রকাশ করাতে হবে। আপনি যদি আপনার প্রেজেন্টেশনে যদি বেশি পরিমাণ লেখালেখি করেন তাহলে আপনার প্রেজেন্টেশনে মূল তথ্যের থেকে লেখার পরিমানই বেশি দেখাবে। এতে অনেক দর্শকই বিরক্তিভাব প্রকাশ করতে পারে।

আশা করি আমার ব্লগটি আপনাদের পছন্দ হয়েছে। আপনি চাইলে ব্লগটি শেয়ার করতে পারেন। আজকের মতো এখানেই শেষ করছি। সবাই ভালো থাকবেন। ব্লগটি পড়ার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ। আসসালামু আলাইকুম।

 

লিখেছেন

মোঃ রিয়াদ আহম্মেদ

Facebook Comment